বৃহস্পতিবার , মে ২৩ ২০২৪

বছর না ঘুরতেই চাঁদপুরের সড়ক গুলোর বেহাল দশা : জনদুর্ভোগ চরমে

চাঁদপুর দিগন্ত রিপোর্ট

বছর না পেরুতেই চাঁদপুর শহর ও শহরের আশে পাশের সড়কগুলোর বেহাল দশা দেখা দিয়েছে। এতে করে গত কয়েক মাস ধরে চরম দুর্ভোগ পড়েছেন চাঁদপুরবাসি। চাঁদপুরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গুলো অধিক লাভের জন্য পুনঃসংস্কার কাজে নিন্মমানরে সামগ্রী ব্যবহার করার কারনেই সড়ক গুলোর এমন করুন পরিনতি হয়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

জানাযায়, গত কয়েক বছর গুলোতে চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন সড়ক গুলো ভেঙ্গে যাওয়ার কারনে যানবাহন চলাচলের অনপোযুগী হয়ে পড়েছিলো। তখনো এমন দুর্ভোগে পড়েছিলো বিভিন্ন যানবাহন চালক ও পথচারীরা। আর চাঁদপুর বাসির এমন দুর্ভোগের অবসান ঘটাতে গত ৬/৭ মাস পূর্বে চাঁদপুর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে শহরের সড়ক গুলোর পুনঃসংস্কার কাজ করান।

এরমধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য রয়েছে, চাঁ^দপুর শহরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সড়ক, হাজী মহসীন রোড, মরহুম আব্দুল করিম পাটওয়ারী সড়ক, বঙ্গবন্ধু সড়ক, নতুন বাজার, নিউট্রাক রোড, স্ট্যান্ট রোড, কাজী কবি নজরুল ইসলাম সড়ক সহ শহরের বেশ কিছু প্রধান প্রধান সড়ক। এর বাহিরে রয়েছে, চাঁদপুর পুরান বাজার লোহার পুল, উত্তর শ্রীরামদী, এবং চাঁদপুর পুরান বাজার ও হাইমচর সড়ক।

খবর নিয়ে জানা গেছে, প্রায় ৬ থেকে ৭ মাস পুর্বে এসব সড়ক গুলোর পুনঃসংস্কার কাজ করানো হয়। অথচ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গুলো নিজেদের খামখেয়ালি মতো নিন্মমানের মালমাল দিয়ে সড়কের কাজ করানো কারনে। ৬ মাস না পেরুতেই এসব সড়ক গুলোর করুন পরিনতি দেখা দিয়েছে। নিন্মমানের নির্মান সামগ্রী দিয়ে কাজ করানোর কারনে ৬ মাস না পেরুতেই সড়ক গুলোর অধিকাংশস্থানে ইট, পাথর, কংক্রিট এবং পিচ ঢালাই উঠে গিয়ে ছোট-বড় অনেক গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও কয়েকদিন পুর্বে টানা বৃষ্টি এবং নদীর জোয়ারে পানি বৃদ্ধি অনেক সড়কে উঠেছে।

কিন্তু তার আগে থেকেই সড়ক গুলোর এমন বেহাল দশা দেখা দিয়েছে। এর মাঝে আবার বৃষ্টি এবং জোয়ারের পানিতে সড়ক গুলোর আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিশেষ করে চাঁদপুর শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কটি বৃষ্টি এবং জোয়ারের পানিতে অনেক বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওই সড়ক দিয়ে এখন অনেকটা যানবাহন চলাচলের অনুপোযুগী হয়ে পড়েছে। যার কারনে প্রতিদিন সড়ক গুলো দিয়ে যে কোন যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় চালক ও যাত্রীদের। অনেক যানবাহন চালকরা জানায়,সড়ক গুলোর বিভিন্নস্থানে পিচ ঢালাই উঠে ছোট বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ার কারনে গাড়ী চালাতে গিয়ে তাদের অনেক কষ্ট করতে হয়। অনেক যানবাহন গুলোর চাকা গর্তে পড়ে গাড়ির এক্সেলেটর এবং বাম্পার ভেঙ্গে যায়। অনেক যানবাহনের চাকাও পাম্পাসার হয়ে যায়।

চাঁদপুরের এসব সড়ক গুলো পুনঃসংস্কারের পরপরই জায়গায়, জায়গায় ভাঙন ধরতে শুরু করেছে । রাস্তার মাঝখানে সৃষ্টি হয়েছে বিশাল গর্তের। অনেক জায়গায় দেবে গেছে বিভিন্ন সড়ক। কয়েকটি সড়ক দিয়ে এখন যান চলাচল করা ঝুঁকিপ‚র্ণ। ত্রæটিপ‚র্ণ নির্মাণ কাজই এর জন্য দায়ী বলে মনে করছেন চাঁদপুরবাসি। গত বছর গুলোতে একই ভাবে সড়ক গুলোর পুনঃসংস্কার কাজে অনিয়ম থাকা সত্বেও ঘুরে ফিরে এসব অনিয়ম কারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গুলোকেই কাজ দিচ্ছেন কর্তৃপক্ষ। সড়ক গুলোর এমন বেহাল পরিনতির কারনে সেগুলো আবারো পুনঃসংস্কার এখন জরুরী হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

এবিষয়ে চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী এ এইচ এম শামসুদ্দোহা বলেন, চাঁদপুর শহরের সড়ক গুলোর যে কাজ করানো হয়েছে। সেগুলো ১৫/১৬ অর্থ বছরের টাকা দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। এটি অসত একটি প্রজেক্ট। বিশ্ব ব্যাংকের আওতায় এই সড়ক গুলোর কাজ করানো হয়েছে। তবে এখনো কাজের বিল দেয়া হয়নি। তারা এসে সড়ক গুলোর ফাইনাল কাজ পরিদর্শন করে দেখবে তারপর তাদের বিল দিবে। তাই এটা সম্পর্ন তাদের বিষয়।