শনিবার , জুলাই ২০ ২০২৪

ফরিদগঞ্জ লড়াইরচর আদালতে মামলা থাকা অবস্থায়  পুলিশের বাধা সত্তে¡ও জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ

লকডাউনের মধ্যে সুযোগ নেয় ভুমিদস্যরা। বহিরাগত সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ফসলী জমি নষ্ট করে অন্যায়ভাবে নিরহ মানুষের জমি দখল করে ঘর নির্মাণ করেছেন সোলায়মান মাল। প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা \ ফসলি জমি দখলের পায়তারা!

ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১২নং পশ্চিম চরদু:খিয়ার লড়াইরচর গ্রামে ফসলি জমি জোরপূর্বক দখল করে। উভয় পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সাংঘর্ষের আশংকা করছে জানান এলাকার সাধারণ মানুষ।

২নং বাদী মিজানুর রহমান জানায়, বিবদী সোলায়মান মাল যে জমিতে জোরপূর্বক ঘর তোলছে, এই জমি আমাদের দু’ভাইয়ের ক্রয়কৃত ফসলি সম্পত্তি। যা আমরা দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগ দখল করছি। গত ১২ জানুয়ারী২০ইং গোপনে ১নং বিবাদী আমার দু’বোন থেকে ক্রয় করেছে বলে জানায়।

পরবর্তীতে এলাকার গন্যমান্যদের সমন্বয়ে বিবাদীর পক্ষ থেকে কোন সমাধান না পাওয়ায় আমরা চাঁদপুর আদালতে মামলা দায়ের করে আদালতের মাধ্যমে ভি,সি: ০১/২০২০ইং কারণ দর্শাইবার নোটিশ পাঠানো হয়েছে। এর পূর্বে আমরা ফরিদগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করলে থানা থেকে পুলিশ কর্মকর্তা মো: হেলাল ঘটনাস্থল গিয়ে ও বিবাদীদের বুঝিয়ে সমাধানের চেষ্টা করে, তাদের কাজ বন্ধ রাখতে বলে

এবং পুলিশ বাধা দেওয়ার সত্বেও তারপরও তারা জোরপূর্বকভাবে ঘর নির্মাণ করছে । তারা সকল আইন অমান্য করে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে গত ২৭ মে ২০ইং সকালে আমাদের ফসলি জমি নষ্ট করে ঘর নির্মান করে। আমরা সেখানে গেলে তাদের বহিরাগত সন্ত্রাসীদেরকে দিয়ে অস্ত্র ও দেশীয় দা, ছেনী, লাঠি-ছোটা নিয়ে আমাদের লোকজনদের আহত করে আমাদেরকে দৌড়িয়ে আসলে আমরা প্রাণের ভয়ে নিরপদে চলে আসি। বিভিন্ন ভাবে প্রাননাশের হুমকি-ধমকি দিয়ে যাচ্ছে।

১নং বাদী খোরশেদ আলম জানায়, গত ১৮/০৩/২০২০ তারিখে চাঁদপুর আদালত মোকাম বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা জ্জ ২য় আদালতে সোলায়মান মালসহ ৪ জনকে বিবাদী শ্রেনী ভুক্ত করিয়া মোহাম্মদী প্রিয়েমশান মামলা দায়ের করা হয়। যাহা মামলার নং ৪৫/২০২০ইং পরবতীতে বিবাদীগন উক্ত নালিশী ভুমিতে জোপূর্বক কাজ করতে গেলে আমি আদালতের মাধ্যমে ভি,সি: ০১/২০২০ইং কারণ দর্শাইবার নোটিশ পাঠায়। এবং গত ০৭/০৬/২০ইং চাঁদপুর (ভার্চুয়াল) আদালতে দে:কা:বি: আইনের ৩৯ অর্ডার ১ রুলের বিধানমতে

১ নং বিবাদীর বিরুদ্ধে এক অস্থায়ী/অর্ন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা করেছে।

১নং বিবাদী সোলায়মান মাল জানায়, আমি জমি ক্রয় করে ঘর করেছি এখানে জোরপূর্বক কিছুই হয় না। তার বোনেরা জমি বিক্রি করেছে আমি ক্রয় করে জমি দখল করেছি। সে আর কথা না বলে এড়িয়ে যান।
সন্ত্রাসীরা আমাকে এবং আমার পরিবারের স্বজানদের মেরে পেলার প্রান নাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। এই আবস্থায় আমি এবং আমার পরিবারজনরা নিরাপত্তায় ভুগছি। তবে আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আশ্রয় নিলেও তারা পুলিশের আইনকে তোয়াক্কা করে নির্মাণ কাজ করেই যাচ্ছে। এই ভুমিদস্যদের হাত থেকে রক্ষা ও সুষ্ঠু বিচার পাওয়ার পাবার জন্য চাঁদপুর জেলা প্রশাসকও পুলিশ সুপারের প্রতি সু-দৃষ্টি কামনা করছি ।

ক্যাপশন: ফরিদগঞ্জ লড়াইরচর গ্রামে ফসলি জমি জোরপূর্বক দখল করে ঘর নির্মাণ।