শনিবার , জুলাই ২০ ২০২৪

চাঁদপুরকে পর্যটন শিল্পে গড়ে তুলতে নদী কেন্দ্রীক পর্যটনের উপর গুরুত্ব দিতে হবে–জেলা প্রশাসক মো: মাজেদুর রহমান খান

”ট্যুরিরিজম এন্ড রুর‌্যাল ডেভেলপমেন্ট’ এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে চাঁদপুরে বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

জুম অ্যাপের মাধ্যমে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো: মাজেদুর রহমান খান। তিনি বলেন, চাঁদপুর শহর ইলিশ ও নদী কেন্দ্রীক পর্যটনের সম্ভাবনা রয়েছে। আর এই শহরকে পর্যটন শিল্পে গড়ে তুলতে নদী কেন্দ্রীক পর্যটনের উপর গুরুত্ব দিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন মোলহেড ছাড়াও অনেক জায়গা রয়েছে যা দেখার মত। আর চাঁদপুরের মানুষ সেসব জায়গাতে ঘুরতেও যায়। তাই আমরা পর্যটন নিয়ে চাঁদপুরে অনেক কিছু করতে চাই।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামানের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন পুরান বাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের পক্ষে সাবেক সভাপতি বিএম হান্নান, কবি ও সাহিত্যিক পিযুষ কান্তি বড়ুয়া, চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের প্রতিনিধি, মহিলা কলেজের অধ্যক্ষে প্রতিনিধি, পর্যটন দিবস উপলক্ষে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা উপ-কমিটির আহবায়ক অধ্যক্ষ ওমর ফারুক, সদস্য মো: জাহিদুল হক মিলন প্রমূখ।
পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান মানিক, ইমরান মাহমুদ ডালিম, ও মুরশেদুল প্রমূখ।

জুম অ্যাপে আলোচনা শেষে বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনলাইনে রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করা হয়।

প্রাথমিক স্তরের রচনা প্রতিযোগীতায় ১ম আরিশা আদ্রিয়ান সোহা (৫ম শ্রেনী), ২য় ফাহিমা আফফান খান (৫ম শ্রেনী) ৩য় নাজিয়া সুলতানা নিশু (৫ম শ্রেনী)।

মাধ্যমিক স্তরে রচনা প্রতিযোগীতায় ১ম মাইন্লু ইসলাম তানিম (১০ম শ্রেনী), ২য় মিথীলা মজুমদার (১০ম শ্রেনী), ৩য় সানজিদা আক্তার (৯ম শ্রেনী)।

উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে রচনা প্রতিযোগীতায় ১ম নাইমা আক্তার মুন্নী (দ্বাদশ শ্রেনী,) ২য় অন্তরা দাস (একাদশ শ্রেনী), ৩য় নাজমা সুলতানা (একাদশ শ্রেনী)।

মাধ্যমিক স্তরে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতায় ১ম তাসনিম জামান (৯ম শ্রেনী), ২য় ফারিজা আলম (১০ম শ্রেনী), যৌথভাবে ৩য় স্থান আশরাফুল আলম ইসতি (৮ম শ্রেনী) ও আব্দুল্লাহ আল মাবরুর (৭ম শ্রেনী)।